Breaking News
Home / Uncategorized / পরিমননির বাসার সামনে মাস্ক বিক্রি করে ভাইরাল,বিস্তারিত ভিতরে’

পরিমননির বাসার সামনে মাস্ক বিক্রি করে ভাইরাল,বিস্তারিত ভিতরে’

Binodontimes: মেইনগেট ভেঙে হা’মলা চালানোর উদ্দেশ্যে ফ্ল্যাটের দরজার সামনে কারা যেন দাঁড়িয়ে। শিগগিরই আমাকে বাঁ’চাতে আসুন।—এমন আকুতি জানিয়ে লাইভে আসেন আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি।

তার সেই লাইভের পর লকডাউন ভেঙে বনানীর আশপাশের অনেকেই পরীমনির বাসার নিচে জড়ো হন। যদিও পরীমনিকে রক্ষার উদ্দেশ্যে নয়; মানুষ জড়ো হয়েছিলেন কৌতূহল বশত। এর পর পরীমনির বাসায় র্যা বের অ’ভিযানের খবর গণমাধ্যমে প্রকাশের পর উৎসুক জনতার ভিড় আরও বাড়ে।

আর সেই সুযোগে ভিড়ের মাঝেই ফুটপাতে ভ্রাম্যমাণ দোকান খুলে বসেন হকাররা। বেশ কয়েকজনকে ঝালমুড়ি, চানাচুর ও ডাব বিক্রি করতে দেখা যায়।এ সময় অনেক মাস্ক নিয়ে এসেছিলেন বরগুনার মো. এম’দাদুল হক। পরীমনির বাসার নিচে ৩০ মিনিটে বিক্রি হয়ে যায় এম’দাদুলের সব মাস্ক।পরীমনির দুঃসময়ে এম’দাদুল খুশি। একেই বলে— কারও পৌষ মাস তো কারও সর্বনাশ।

পরীমনির বাসার নিচে মোক্ষম সময়ে এসে মাস্ক বিক্রি করে এখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাই’রাল এম’দাদ। তাকে নিয়ে রসিকতায় মেতেছেন নেটিজেনরা। অনেকে আবার এমন বুদ্ধির জন্য বাহবা দিচ্ছেন। কেউবা বলছেন, করো’নায় অসেচতন উৎসুক জনতার মাঝে সংক্রমণ ঠেকাতে এম’দাদুলের মাস্ক বিক্রি প্রশংসনীয়। কেউ বলছেন, একেই বলে পারফেক্ট বিজনেস স্ট্রেটেজি। কেউ কেউ এম’দাদুলের ছবি পোস্ট করে লিখেছেন— দেখু’ন রথ দেখা আর কলা বেচা।

অনেকেই লিখেছেন, আল্লাহ কিসের মাধ্যমে কার রিজিকের ব্যবস্থা করে দেন সেটি একমাত্র আল্লাহই জানেন।মাস্ক বিক্রি করে ভাই’রাল এম’দাদুল হকের সাক্ষাৎকারও নিয়েছে কিছু গণমাধ্যম। ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপ, পেজে হয়েছে তাকে নিয়ে জম্পেশ আলোচনা।ঘটনার বর্ণনা দিয়ে মো. এম’দাদুল হক জানিয়েছেন, এই করো’নায় পেট চালাতে মাস্ক বিক্রি করেই চলছেন বরগুনার মো. এম’দাদুল হক। প্রতিদিন ২০০ মাস্ক বিক্রি করলে সংসারের খরচ চলে। কিন্তু গত কয়েক দিনের কঠোর লকডাউনে টার্গেট পূরণ হচ্ছিল না তার। এতে হতাশ হয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন তিনি।

এম’দাদুল হক বলেন, বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে একটি ক্যান্টিনের টিভিতে চিত্রনায়িকা পরীমনিকে তার বনানীর বাসা থেকে আ’ট’কের খবর পাই। টেলিভিশনে দেখি নায়িকার বাসার সামনেই হাজার হাজার মানুষের ভিড়। করো’না পরিস্থিতিতে এত ভিড় যে, বনানী সোসাইটি থেকে মাস্ক পরার জন্য মাইকিং করা হচ্ছিল। এটি শুনেই আমি মাস্কের ব্যাগ হাতে নিয়ে দৌড়িয়ে চলে যাই পরীমনির বাসার সামনে। ৩০ মিনিটেই সব মাস্ক বিক্রি হয়ে যায় আমা’র। কিন্তু তখনও আরও অনেকে মাস্ক চাইছিল আমা’র কাছে। তখন স্ত্রী’কে ফোন করে বাসা থেকে আরও মাস্ক আনি। সেগুলোও বিক্রি হয়ে যায় কয়েক মিনিটের মধ্যেই।

ঠিক কতগুলো মাস্ক বুধবার বিকালে বিক্রি করেছেন তার হিসাব না দিতে পারলেও এতগুলো মাস্ক এর আগে কখনও একদিনে বিক্রি করতে পারেননি বলে জানান এম’দাদুল। এক কথায় পরীমনি আ’ট’কে এম’দাদুলের মাস্ক বিক্রির ব্যবসা ছিল রম’রমা।

About admin2

Check Also

জানালা দিয়ে বউ পালালো! বিস্তারিত ভিতরে:

আমার বাংলা ৭১: আমার বাংলা ৭১: বউ পালালেন, তার পেছন পেছন পালালেন বরও। এটা কোনো …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *