Breaking News
Home / Uncategorized / ক্যাসিনোতে যাওয়ার অভিযোগে প্রতিভাবান আল আমিনের ক্যারিয়ার শেষ করে দেন ক্যাসিনো সুজন,বিস্তারিত ভিতরে’

ক্যাসিনোতে যাওয়ার অভিযোগে প্রতিভাবান আল আমিনের ক্যারিয়ার শেষ করে দেন ক্যাসিনো সুজন,বিস্তারিত ভিতরে’

Binodontimes: গত বিশ্বকাপে পেসার আলআমিন কে কোন রকম দোষ ছাড়া ক্যাসিনোতে গিয়ে মদ খেয়েছিলো বলে অভিযোগ করে তাকে দল থেকে বাদ দিয়ে তার ক্যারিয়ার শেষ করে দেওয়া হয়, যার মুলে ছিলেন কোচ খালেদ মাহমুদ সুজন।এরপর আর তাকে দলে নেওয়া হয়নি।এরপর থেকেই ভাল মানের পেসারের অভাবে ভুগছে টিম বাংলাদেশ।”

আরো পড়ুন, জুয়া খেলতে নয়, ক্যাসিনোতে খেতে গিয়েছিলাম : খালেদ মাহমুদ সুজন
আপনার একটি ব্যক্তিগত বিষয়ে প্রশ্ন করতে চাই। এ প্রশ্নটি শেষ করার আগেই পাল্টা প্রশ্ন ছুড়েন সুখালেদ মাহমুদ জন। বলেন, ক্যাসিনোর ওই ভিডিও নিয়ে তো প্রশ্ন? হ্যা তাই।

শ্রীলঙ্কা সফরে বাংলাদেশের জাতীয় দলের কোচের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এরই মধ্যে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, দ্বিতীয় ওয়ানডে তে পরাজয়ের পর কলম্বোর ক্যাসিনোতে গিয়েছিলেন সুজন।”

তবে এ বিষয়টি একদমই অস্বীকার করেননি তিনি। কিন্তু সেখানে জু য়া খেলার জন্য যে যাননি তিনি তা জোর গলায় বলেন।

তার ভাষায়, আমার এক বন্ধুকে নিয়ে সেখানে গিয়েছিলাম। ক্ষুধা পেয়েছিল বলে সেখানে যাই খাওয়ার জন্য। ক্যাসিনোতে শুধু কার্ড খেলা হয় না, খাবারও পাওয়া যায়। সে কারণেই ওখানে যাই।

কিন্তু ওখানকার ভিডিও কেউ মোবাইলে ধারণ করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ায় এ নিয়ে শুরু হয় প্রবল আলোচনা। তবে তাতে বিচলিত নন খালেদ মাহমুদ, আমি জানি, আমি কেন সেখানে গিয়েছিলাম। কার্ড খেলার তো প্রশ্নই ওঠে না।

বাংলাদেশ জাতীয় দলের সিরিজ চলছে; কোচ হিসেবে আমার সমস্ত মনোযোগ সেখানে। ক্যাসিনোতে এক বাঙালি ছিলেন। তিনি আমার কাছে কার্ড চাইলে তাকে কার্ডও দিই। ব্যস, এইটুকুই। এখন এ নিয়ে যদি ফেসবুকের মতো জায়গায় আলোচনা-সমালোচনা হয়, তাতে আমার কী করার আছে


উল্লেখ্য, শ্রীলঙ্কা সফররত বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল ইতিমধ্যেই তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচ হেরে সিরিজ খুঁইয়েছে। সামনে আছে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার শংকা। দলের এমন অবস্থার মাঝে ভারপ্রাপ্ত কোচ খালেদ মাহমুদ সুজনকে কলম্বোর, বেলিস ক্যাসিনো’তে যাওয়ার ভিডিও সোশ্যাল সাইটে ছড়িয়ে পড়েছে।”

১১ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যায় সুজন একজন নারী ওয়েটারের হাত থেকে ব্যাংকের এটিএম অথবা ক্রেডিট কার্ড গ্রহণ করছেন। এরপর তিনি এগিয়ে যান একটি জুয়ার টেবিলের দিকে।
এর আগে ২০১৫ বিশ্বকাপেও তিনি ক্যাসিনো বিতর্কে জড়িয়েছিলেন। জাতীয় দলের ম্যানেজার হিসেবে ওই বিশ্বকাপে গিয়ে তিনি অস্ট্রেলিয়ার একটি ক্যাসিনোতে ক্যামেরাবন্দি হন। সেবারও তিনি জুয়ার কথা অস্বীকার করে জানান, রাতের খাবার খুঁজতে ক্যাসিনোতে গিয়েছিলেন। এবার জাতীয় দলের ভারপ্রাপ্ত কোচ সুজনের মুখে একই বক্তব্য শোনা গেল।

About admin2

Check Also

এই কুলাঙ্গাররাই আমার স’র্ব’না’শ করেছে

Binodontimes: নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় দায়ের করা দু’টি মামলা শুক্রবার রাতে গ্রহণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *