Breaking News
Home / Uncategorized / ১৩ দিনেও রহস্য উদ্‌ঘাটন হয়নি ‘বিস্তারিত ভিতরে’

১৩ দিনেও রহস্য উদ্‌ঘাটন হয়নি ‘বিস্তারিত ভিতরে’

Binodontimes: হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্‌ঘাটনে” ওই বাসার নিরাপত্তারক্ষী, চিকিৎসকের সাবলেটসহ ২৫ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ।
১৩ দিনেও” কলাবাগানে চিকিৎসক কাজী সাবিরা রহমান হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্‌ঘাটিত” হয়নি। তবে ঘটনার রহস্য উদ্‌ঘাটনে থানা-পুলিশের পাশাপাশি অন্যান্য তদন্তকারী সংস্থা কাজ করছে। হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্‌ঘাটনে ওই বাসার” নিরাপত্তারক্ষী, চিকিৎসকের সাবলেটসহ ২৫ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ ”করেছে পুলিশ।

বিশেষ করে চিকিৎসক কাজী সাবিরা রহমানের সাবলেট মডেল কানিজ সুবর্ণাকে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। তবে হত্যাকাণ্ডের রহস্য ”উদ্‌ঘাটিত হয়নি।

ঢাকা মহানগর পুলিশের” (ডিএমপি) নিউমার্কেট অঞ্চলের সহকারী কমিশনার শরীফ মোহাম্মদ ”ফারুকুজ্জামান গতকাল শনিবার প্রথম আলোকে বলেন, চিকিৎসক সাবিরা রহমান খুনের রহস্য উদ্‌ঘাটনে সব ধরনের চেষ্টা তাঁরা” চালিয়ে যাচ্ছেন। ঘটনার রহস্য উদ্‌ঘাটনে সাবলেট কানিজ সুবর্ণা ও নূরজাহান এবং বাড়ির নিরাপত্তারক্ষীসহ” অন্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন। জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্য-উপাত্ত ও চিকিৎসকের মুঠোফোনের কল ডিটেইলস রেকর্ডের (সিডিআর) তথ্য পর্যালোচনা করা হচ্ছে। তবে এখনো হত্যাকাণ্ডের মোটিভ ”জানা সম্ভব হয়নি। ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা জোনের উপকমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান প্রথম আলোকে ”বলেন, চিকিৎসক সাবিরা হত্যাকাণ্ডের সুনির্দিষ্ট কারণ জানা না গেলেও তাঁরা ধারণা করছেন, পরিচিতজনেরা এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত আছেন।

গত ৩১ মে রাজধানীর কলাবাগানের” ফার্স্ট লেনের একটি পাঁচতলা ভবনের তৃতীয় তলার ভাড়া ফ্ল্যাট থেকে চিকিৎসক সাবিরার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের ভাই রেজাউল হক” বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন।”

গ্রিন লাইফ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক কাজী সাবিরা রহমান খুন হওয়ার পর কলাবাগান থানা-পুলিশের পাশাপাশি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি), পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন” (পিবিআই) ও র‍্যাব ছায়া তদন্ত করছে। বাড়ির মালিক ও তদন্তসংশ্লিষ্ট একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত জানুয়ারি মাসে ”তৃতীয় তলায় ভাড়া নেন সাবিরা। পরের মাসে তিনি কানিজ সুবর্ণা ও নূরজাহানের কাছে দুটি কক্ষ ভাড়া দেন। দুই সাবলেটের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা করে ভাড়া তুলতেন সাবিরা।ঈদের আগে গোপালগঞ্জে গ্রামের বাড়িতে” যান একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া নূরজাহান। সাবিরা যখন খুন হন, তখন তিনি গোপালগঞ্জে ছিলেন। তবে ঘটনার সময় সাবিরার সঙ্গে থাকছিলেন যশোরের মেয়ে মডেল কানিজ সুবর্ণা।”

থানা-পুলিশের পাশাপাশি কানিজ সুবর্ণাকে পিবিআইসহ অন্যান্য সংস্থাও জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। অবশ্য তাঁর কথায় রহস্যের জট এখনো খোলেনি।

তবে তদন্ত প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারা বলছেন, যে বাসায় চিকিৎসক সাবিরা থাকতেন, সেই বাসায় নিচতলায় সার্বক্ষণিক নিরাপত্তারক্ষী রমজান দায়িত্ব পালন করেন। কানিজ সুবর্ণা দাবি করেছেন, সেদিন সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে দরজা বন্ধ করে তিনি প্রাতর্ভ্রমণে যান। এর তিন ঘণ্টা” পর তিনি আবার কক্ষের সামনে ফিরে আসেন। তবে ঘরের ভেতর থেকে ধোঁয়া দেখেন। পরে তিনি ফায়ার সার্ভিস অফিসে যোগাযোগ করেন। নিরাপত্তারক্ষী ও পাশের বাড়ির ”আরেক নারীকে তিনি ডেকে আনেন। তাঁদের উপস্থিতিতে দরজা খোলা হয়। তিনি হত্যাকাণ্ডে জড়িত নন বলে দাবি করেছেন।সাবিরা রহমানের অপর সাবলেট নূরজাহানকে গোপালগঞ্জ থেকে ঢাকায় নিয়ে এসে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। মাঝেমধ্যে নূরজাহান সাবিরার মেয়েকে পড়াতেন।”

বাড়ি ভাড়া নেওয়ার আগে চিকিৎসক সাবিরা রহমান বাড়িওয়ালার কাছে দাবি করেছিলেন, তাঁর স্বামী বিদেশ থাকেন। অবশ্য সাবিরার প্রথম স্বামী মারা যান সড়ক দুর্ঘটনায়। পরে তিনি শামসুদ্দিন আজাদ নামের এক ব্যক্তিকে বিয়ে করেন। ”আগের ঘরে এক ছেলে আছে। তিনি বিবিএতে পড়েন। আর মেয়ের বয়স ১০ বছর। চিকিৎসক সাবিরা একাই থাকতেন বাসায়। সাবিরার মামাতো ভাই ও মামলার ”বাদী রেজাউল হক প্রথম আলোকে বলেন, হত্যাকাণ্ডের এত দিন পার হলেও কেউই গ্রেপ্তার হয়নি। তবে তিনি আশা করেন, খুব শিগগির খুনের রহস্য” উদ্‌ঘাটিত হবে ও খুনি ধরা পড়বে।

About admin2

Check Also

ঘুমিয়ে পড়েছিলেন চালক, যে হাল হলো যাত্রীদের

টাঙ্গাই‌লের কা‌লিহাতী‌তে বাস খা‌দে প‌ড়ে ৬০ বছর বছর বয়সী এক বৃদ্ধ নি,হ,ত, হ‌য়ে‌ছেন। এ ঘটনায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *