Breaking News
Home / Uncategorized / ইসলাম গ্রহণ করে আল্লাহর কাছে যা চাইলেন ৩ হিন্দু যুবক ‘বিস্তারিত ভিতরে’

ইসলাম গ্রহণ করে আল্লাহর কাছে যা চাইলেন ৩ হিন্দু যুবক ‘বিস্তারিত ভিতরে’

Binodontimes: ইসলাম শিক্ষা দেয় যে আল্লাহ দয়ালু, করুনাময়, এক ও অদ্বি”তীয়। ইসলাম মানব জাতিকে সঠিক পথ দেখায়। ইসলা”মী বিশ্বাস অনুসারে, আদম হতে শুরু করে আল্লাহ্ প্রেরিত সকল নবী ইসলামের বাণীই প্রচা’র করে গেছেন। যুগে যুগে বহু মানুষ ভিন্ন ধর্ম থেকে ইসলাম গ্রহন করেছেন।

তারই ধারাবাহিকতায় এবার ময়মনসিংহে ৩ হিন্দু যুবক ইসলাম গ্রহন করেছেন। বৃহস্প”তিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) ময়মনসিংহের সিনিয়র জুডিসিয়া’ল ম্যাজিট্রেট সম্মুখে, এফিডেবিটের মাধ্যমে হিন্দু থেকে ইসলাম গ্রহণ করেন তিন যুবক। তারা এখন ঢাকার একটি প্রাইভেট কোম্পানীতে চাকরী করছে। কিছু দিনের মধ্যেই তারা গ্রামে ফিরে ৪০ দিনের চিল্লায় যাবে।

ইসলাম গ্রহন করা ঐ তিন যুবক হলেন, উপজেলা রামগোপালপুর ইউ”নিয়নের পশ্চিম পাড়া গ্রামের অজয় চন্দ্র বর্মণের ছেলে হৃদয় চন্দ্র বর্মণ (১৯) বর্তমান নাম উসমান, দীলিপ চন্দ্র বর্মণের” ছেলে প্রদীপ চন্দ্র বর্মণ (২১) বর্তমান নাম উমর ও শশী বর্মণের ছেলে অমল চন্দ্র বর্মণ (১৯) বর্তমান নাম আবু বক্কর।

এই তিন যুবকের সঙ্গে যোগা”যোগ করলে তারা বলেন, ইসলাম মুক্তির ও শান্তির ধর্ম। দীর্ঘদিন ধরে ইসলাম ধর্মের বিভিন্ন বই পড়ে, ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে স্বইচ্ছায় ও স্বজ্ঞানে আদাল”তের মাধ্যমে ইসলাম ধর্ম করেছি এবং, স্থানীয় এক মসজিদের ইমামের সম্মুখে লা-ইলাহা ইল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুল্লাহ (সাঃ) পাঠ করে পবিত্র গ্রন্থ আল

কোরআনের উপর বিশ্বাস স্থাপন করেছি। আল্লাহ তাআলা এই তিন যুবকের মত আরও অনেক”কে ইসলাম গ্রহন করার তাওফিক দান করুন।

আরো পড়ুন: নিজ হাতে কোরআনের পাণ্ডুলিপি লিখলেন ৭৬ বছরের বৃদ্ধা

পুরো নাম জায়নাব আব্দুল গনি মুহাম্মাদ হুসাইন। সাত বছরের কর্মসাধনায় তিনি পবিত্র কোর”আনের ৩০টি পাণ্ডুলিপি তৈরি করেছেন।পুণ্যবতী এ নারী মিশরের মিনিয়া প্রদেশের আল-তালিন গ্রামের অধি”বাসী। তিনি ৬ষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন।

জীবনসায়াহ্নে এসে নিজ হাতে পবিত্র কোরআ”নের ৩০টি পাণ্ডু”লিপি লিখে তিনি অনন্যতার পরিচয় দিয়েছেন। প্রাসঙ্গিকতা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমার পাঁচ ছেলে এবং দুই মেয়ে রয়েছে। আমার পিতা সম্পূর্ণ কোরআনের হাফেজ ছিলেন। তিনি এডু”কেশন সেক্টরে কাজ করতেন। আমি প্রায় ৭ বছর পূর্বে কোর”আন লেখার কাজ আরম্ভ করি।

সম্পূর্ণ কোর”আন হেফজ করার প্রবল ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও সময়স্বল্পতা ও আনু”সাঙ্গিক বিভিন্ন কারণে পরিনি। এখন পর্যন্ত মাত্র ৬ পারা মুখস্থ করতে সক্ষম হয়েছি। এ জন্য আমার সবসময় খুব দুঃখ”বোধ কাজ করে।কিন্তু আমাদের এলা”কার একজন নারী আমাকে পবিত্র কোরআন নিজ হস্তাক্ষরে লেখার জন্য পরামর্শ দেন।

তার পরামর্শ আমাকে বেশ অনু”প্রাণিত করে। এরপর থেকে আমি প্রতি রাতে ঘুম থেকে উঠে প্রথম ৬ দিনে এক হাজার আয়াত লিখি। এতে আমার আগ্রহ আরো বেগ পায়। তাই সম্পূর্ণ কোরআন লেখায় মনো”নিবেশ করি। গুরুত্ব ও আনন্দ-উচ্ছ্বাসের সঙ্গে তিনি আরো বলেন, আমি মাত্র ২৫ দিনে সম্পূর্ণ কোরআন লিখে শেষ করতে পেরেছি।

আমার সন্তান ঈমান ওমরার যাওয়ার সময় সঙ্গে করে একখণ্ড পাণ্ডুলিপি নিয়ে যাবে। আশা করছি, পবিত্র কোরআনের বিশেষ”’জ্ঞরা আমার তৈরিকৃত পাণ্ডুলিপিটি পর্যবেক্ষণ ও পর্যালোচনা করবেন।

About admin

Check Also

জানালা দিয়ে বউ পালালো! বিস্তারিত ভিতরে:

আমার বাংলা ৭১: আমার বাংলা ৭১: বউ পালালেন, তার পেছন পেছন পালালেন বরও। এটা কোনো …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *