Home / Uncategorized / ইসরাইল-হামাস যুদ্ধ বিরতি হওয়ার কারণ এবং ফলাফল

ইসরাইল-হামাস যুদ্ধ বিরতি হওয়ার কারণ এবং ফলাফল

গত ১৯ শে মে যখন ইসরাইলের হামলা চলছিলো গাজায় তখন আমেরিকার সেক্রেটারি স্টেট এন্টনি ব্লিংকন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেরগেই লাভারভের সাথে মিটিং করছিলেন। মিটিং ছিলো আর্কটিক কাউন্সিলের। সেখান থেকেই ঘটনার শুরু। সেখানে আমেরিকা ও রাশিয়ার নানা ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়। সেখানে ইসরাইল-হামাস সংঘাত নিয়েও কথা হয়। সেখানে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেরগেই লাভারভ এন্টনি ব্লিংকনকে ইসরাইলের ব্যাপারে সাবধান করেন। সেগরেই লাভারভ ও এন্টনি ব্লিংকনের মিটিং এ রাশিয়া থেকে জার্মানিতে সরাসরি গ্যাস পাইপলাইন নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আর তাতে আমেরিকা নিষেধাজ্ঞা দেবে না বলে জানিয়েছে। এসবের পর আলোচনায় উঠে আসে ইসরাইল-হামাস সংঘাত। লাভারভ বলেন – ইসরাইলের সাথে আমাদের সম্পর্ক ভালো। আপনার একপেশে ভাবে ইসরাইলকে সমর্থন করছেন তাও ঠিক নয়।

ইসরাইল ও আপনাদের মনে রাখা উচিত সিরিয়া ও লেবাননে আমরা উপস্থিত আছে। এই দেশগুলোতে ইসরাইল হামলা করলে ইসরাইলকে মূল্য দিতে হবে এবং আমরা ও আপনারা মুখোমুখি হয়ে যাবো। এটা ছিলো রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পক্ষ থেকে শেষ সর্তকবার্তা। আমেরিকা তা বুঝে যায়। তারপর আমেরিকান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন নেতানিয়াহুকে হুমকি দেন ফোন করে। বাইডেন বলেন – আমি আজকের ভিতর কার্যকর অস্ত্র বিরতি চাই। বাইডেনের এই বাক্য হুমকি ছিলো। যা ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী অগ্রাহ্য করেন নি। কারণ এটা ইসরাইলের রেড লাইন ছিলো।

যদি ইসরাইল এই রেড লাইন অতিক্রম করতো তাহলে তাদের অবস্থা বখতে নসরের যুগের মতো হতো। যা আজও ইসরাইলিদের জন্য দুঃস্বপ্ন। বাইডেনের হুমকি নিয়ে আমেরিকান মিডিয়া শিরোনাম করেছে৷ ওয়াশিংটন পোস্ট লিখেছে – বাইডেনের সর্তকবার্তা ইসরাইলের প্রতি, নাড়িয়ে দিলো কুটনীতি। সিএনএন বলছে, বাইডেনের এই হুমকি ইসরাইলের সাথে আমেরিকার সম্পর্কের সবচেয়ে খারাপ সময় ছিলো। আমেরিকা ও ইউরোপের চাপে ইসরাইল ও হামাসের যুদ্ধ বিরতি হয়েছে। যার মধ্যে রাশিয়ার বড় ভূমিকা রয়েছে। মিশরে আলোচনা চলছিলো দু’পক্ষের।

মিশরে ইসরাইলি প্রতিনিধিরা আসলেও হামাসের নেতৃস্থানীয় কেউ আসে নি। হামাস থেকে বলা হয়েছিলো আমরা এখানে আসার জন্য বের হলে আমাদের ইসরাইল হত্যা করবে। এই কথার পর সিআইএ এবং মিশরের গোয়েন্দা সংস্থা হামাস নেতৃবৃন্দকে নিরাপত্তার ব্যাপারে আশস্ত করে। তারপর বিখ্যাত মারওয়ান ঈসা যুদ্ধ বিরতির আলোচনায় যোগদেন। ইসরাইলকে হামাস দুটি শর্ত দেয়। শর্তগুলো হলো এক, ইসরাইলকে মসজিদুল আকসাসহ মুসলিমদের ধর্মীয় সকল স্থাপনা থেকে সরে আসতে হবে। দুই, শেইখ জাররা থেকে ফিলিস্তিনিদের উৎখাত বন্ধ করতে হবে। এখন এই দুটি শর্ত মেনে ইসরাইল যুদ্ধ বিরতিতে রাজি হয়েছে। শর্ত ইসরাইল কতক্ষণ মানবে তা ঠিক করে বলা যায় না। ইসরাইল গাজায় হামাসের ঘাঁটি, টানেল গুড়িয়ে দেওয়া ছাড়াও আরও একটি উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য বিমান হামলা করছিলো। যার মধ্যে একটিও হাসিল হয় নি। ইসরাইল হামাসের কাসসাম ব্রিগেডের প্রধান মুহাম্মদ দায়েফকে হত্যা করতে চাইছিলো। কিন্তু পারে নি।

মুহাম্মদ দায়েফ ১৯৯০ সালে হামাসে যোগ দেন। ইয়াহিয়া এস এবং আদনান আল গুল মুহাম্মদ দায়েফকে হামাসে নিয়ে আসেন। ইয়াহিয়া এস একজন কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। যিনি হামাসের রকেট ও বিস্ফোরক তৈরি করেছিলেন। ইসরাইল টিএনটির মতো বিস্ফোরক গাজায় পৌঁছাতে দেয় না। তাই ইয়াহিয়া এস এসিটোন (Acetone) ব্যবহার করেন। এসিটোন বাড়ির পেইন্ট কিংবা নেল পালিশে পাওয়া যায়। সেখান থেকে এসিটোন আলাদা করে এসিটোন পার অক্সাইড বিস্ফোরক তৈরি করেন। মোসাদ ১৯৯৫ সালে ইয়াহিয়া এসকে টেলিফোন বিস্ফোরণে হত্যা করে। তারপর ২০০৪ সালে আদনান আল গুলকেও হত্যা করা হয়। মুহাম্মদ দায়েফকে হত্যা করার জন্য ১২ থেকে ১৫ বার চেষ্টা করা হলেও ইসরাইল সফল হয় নি।

২০১৪ সালের বিমান হামলায় মুহাম্মদ দায়েফের ২৮ বছর বয়সী স্ত্রী এবং দুই সন্তান শহীদ হয়। ইসরাইলের হামলায় মুহাম্মদ দায়েফ তাঁর দুই পা এবং এক হাত হারিয়েছেন। এরপরও মুহাম্মদ দায়েফ কাসসাম ব্রিগেড পরিচালনা করছেন। ইসরাইল এবারও সফল হয় নি। তবে ইসরাইল নিরপরাধ ২৩২ ফিলিস্তিনিকে শহীদ করেছে৷ সব মিলিয়ে যুদ্ধ বিরতি হওয়ার ফলে বড় যুদ্ধের সম্ভাবনা শেষ হয়ে গেল খানিকটা। গাজায় বিদেশি মানবিক সহায়তা প্রবেশ করতে পারবে। গাজার মুসলিমরা সামান্য সময়ের জন্য স্বস্তির শ্বাস নিতে পারবে। এরপর তাদের আবার প্রস্তুত হতে হবে এক নতুন সংকটের জন্য। তবে এর ভিতর তুরস্ক ও হামাসের চুক্তি হলে তা একটি আশার আলো হয়ে উঠতে পারে গাজা বাসীর জন্য। গাজাবাসী৷ যুদ্ধ বিরতি ঘোষণার পতাকা হাতে নিয়ে বিজয় মিছিল করে যা তাদের বিজয়ের প্রমাণ। কিন্তু এই বিজয়ের পর তাদের মোকাবেলা করতে নানা চ্যালেঞ্জ।
[সমাপ্ত]

ইসরাইল-হামাস যুদ্ধ বিরতি হওয়ার কারণ এবং ফলাফল
লেখিকাঃ জান্নাত খাতুন।
প্রাক্তন শিক্ষার্থী, আঙ্কারা বিশ্ববিদ্যালয়, তুরস্ক।
তথ্যসূত্রঃ The Washington Post
REUTERS
Al-Jazeera
Associated Press
USA TODAY
Readout Of President Joseph R. Biden,
Jr. Call With Prime Minister Benjamin
Netanyahu Of Israel – The White House
CNN
Abc News

About admin

Check Also

অন’লাইনে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’ জন্ম দিলেন নারী

দ্বিতীয় সন্তান নিতে আগ্রহী হন এক ব্রিটিশ নারী। কিন্তু ৩৩ বছর বয়সী স্টেফনি টেলর নতুন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *