Home / Uncategorized / জেনে নিন বিয়ের পর বাচ্চা না হওয়া স্বামী-স্ত্রীর জন্য অত্যন্ত কার্যকর ১১টি ব্যবস্থা

জেনে নিন বিয়ের পর বাচ্চা না হওয়া স্বামী-স্ত্রীর জন্য অত্যন্ত কার্যকর ১১টি ব্যবস্থা

অনেক দম্পতিই বিয়ের পর একটি ফুটফুটে বাচ্চার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষ’মান থাকেন। অনেকের ক্ষেত্রেই গর্ভধারনের বিষয়টি দ্রুত ঘ’টে যায়, আবার অনেকেই দীর্ঘসময় চেষ্টার পরেও গর্ভধারনে সফল হন না। দেখা যায়, এক দুই মাস চেষ্টার পরে অনেক দম্পতি হ’তাশায় ভুগতে থাকেন। এই ধ’রনের বাচ্চা হতে স’মস্যা অনেক দম্পতির বেলায় ঘ’টে থাকে। অনাকাঙ্খি’ত এই স’মস্যাটি দ্রুত সমধানের জন্য স্বামী-স্ত্রী উভ’য়কেই কা’র্যকরী ব্যব’স্থা নিতে হবে।

১. বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের প’রামর্শ: বাচ্চা নেয়ার লক্ষ্যে যে সকল দম্পতি এক বছর বা তার বেশী সময় ধ’রে চেষ্টা করছেন কিন্তু সফল হচ্ছেন না তারা অতি সত্বর একজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তরের প’রামর্শ নিন। ডাক্তরের প’রামর্শ মতো স্বা’স্থ্য ও অন্যান্য পরীক্ষা করুন। পারিবারিক কোন রো’গ বা দীর্ঘমেয়াদি অসু’স্থতা থাকলে তা ডাক্তরকে জা’নান। সুচিকিৎ’সার মাধ্যমে এসব কা’টিয়ে উঠতে স্বামী-স্ত্রী দুজনকেই সাহায্য করবে।এছাড়া শা’রীরিক কিছু পরীক্ষা যেমন ,ওজন ,র’ক্তচা’প ,ও আপনার নিতম্ব স্বা’স্থ্যবান কিনা ডাক্তার তা পরীক্ষা করে থাকেন। কোন রো’গের জন্য কি কি চিকিৎ’সা গ্রহণ ক’রেছেন, কি কি ওষুধ গ্রহণ ক’রেছেন-এসব ডাক্তারকে জা’নান।এসব স’মস্যা সমাধানের মাধ্যমে একজন নারীকে গর্ভধারনের পথ সুগম ক’রতে সাহায্য করে।

২. সু’স্থ স্বা’ভাবিক জীবন-যাপন: স্বামী-স্ত্রীর সু’স্থ স্বা’ভাবিক জীবন-যাপন নি’শ্চিত ক’রতে হবে যা একজন নারীকে গর্ভবতী হতে সাহায্য করে। অযথা মা’নসিক দু:শ্চিন্তা পরিহার করুন।অনেক সময় দেখা যায় কোন ধ’রনের শা’রীরিক স’মস্যা না থাকার পরও অনেকে গর্ভধারণ ক’রতে পারছেন না। এই ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই ধৈর্য্য ধ’রতে হবে এবং স্বা’স্থ্যের প্রতি যত্নবান হতে হবে।

৩. গর্ভধারনের জন্য সপ্তাহে অ’ন্তত তিনবার যৌ’ন মি’লন: মা হবার জন্য নিয়মিত যৌ’ন মি’লন খুবই জরুরী।ওভুলেশান কখন হবে তা হিসেব করে অনেক দম্পতি শুধুমাত্র সেসময় যৌ’ন মি’লনে আগ্রহী থাকেন। ওভুলেশানের সময় সঠিক ভাবে নির্ণয় করা অনেক সময় সম্ভব নাও হতে পারে। তাই সপ্তাহে অ’ন্তত তিন দিন স্বামী-স্ত্রীর মি’লন গর্ভধারনের সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দেয়।

৪. ধুমপান, মদ্যপান এবং ডাক্তারের প’রামর্শ ছাড়া ঔষধ সেবন থেকে বিরত থাকা: কোন দম্পতি যদি ধূমপায়ী বা মদ্যপায়ী হয় বা স্বামী-স্ত্রীর কোন একজন যদি ধূমপায়ী বা মদ্যপায়ী হয় এই মু’হূর্তে তা বর্জন করা উচিত। এসব বদভ্যাস গর্ভধারনে প্র’ভাব ফে’লে যথাযথ ডিম্ব নিষেকে বা’ধা দেয়। এটি গর্ভের সন্তানের জন্য অতিমাত্রায় ক্ষ’তিকর। তাছাড়া ডাক্তারের প’রামর্শ ছাড়া কোনধ’রনের ঔষধ সেবন করা উচিত নয়। অনেকক্ষেত্রে দেখা যায়, ক্যাফেইন মাসিক ঋতুস্রাব অনিয়মিত করে দেয় ফলে গর্ভধারণে বিলম্ব হয়। তাই উচ্চ মাত্রার ক্যাফেইন পরিহার করা উচিত।

৫. ওজন নিয়ন্ত্রন: স্বমী-স্ত্রীর অতিরি’ক্ত ওজন থাকলে প্রথমে তা নিয়ন্ত্রন করা উচিত। এরপর সন্তান গ্রহণের কথা চিন্তা করা উচিত। অতিরি’ক্ত ওজনের কারনে নারীদের অনেকসময় অনিয়মিত ঋতুস্রাব হয় ফলে চেষ্টা করেও সন্তান ধারণে বিলম্ব হয়। পুরুষের অতিরি’ক্ত ওজনের কারনে শুক্রানুর সংখ্যা ও পরিমানের তা’রতম্য দেখা দেয়। ফলে গর্ভধারনে স’মস্যা দেখা দেয়।কাজেই উভ’য়রেই ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে।ওজন কম থাকলেও স্বা’ভাবিক করার চেষ্টা ক’রতে হবে।

About admin

Check Also

অন’লাইনে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’ জন্ম দিলেন নারী

দ্বিতীয় সন্তান নিতে আগ্রহী হন এক ব্রিটিশ নারী। কিন্তু ৩৩ বছর বয়সী স্টেফনি টেলর নতুন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *