Breaking News
Home / Lifestyle / শ’রীরকে বি’ষমুক্ত করে রো’গ প্র’তিরোধ ক্ষ’মতা বা’ড়ায় কিসমিস

শ’রীরকে বি’ষমুক্ত করে রো’গ প্র’তিরোধ ক্ষ’মতা বা’ড়ায় কিসমিস

শ’রীরকে বি’ষমুক্ত করে রো’গ প্রতিরোধ ক্ষ’মতা বাড়ায় কিসমিস – বিভিন্ন মিষ্টান্নেই কি সবসময় কিসমিস ব্যবহার করা হয়? মোটেও না, হরেক পদে ব্যবহারের পাশাপাশি আস্ত কিসমিসও খেয়ে থাকেন অনেকেই! এর মিষ্টি স্বাদ ছোট বড় সবাইকে মুগ্ধ করে! শুধু স্বাদ বাড়াতেই নয় বরংসুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতেও ছোট্ট কিসমিস কতটা উপকারী, জানেন কি? তবে শুকনো কিসমিস খাওয়ার চেয়ে ভিজিয়ে খেলে বেশি উপকার মেলে। কিসমিস খাওয়ার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখা। পরের দিন ভোরে সেটা খেতে হবে খালি পেটে। ভেজানো

কিসমিসে থাকে আয়’রন, প’টাসিয়াম, ক্যা’লসিয়াম, ম্যাগ’নেসিয়াম এবং ফাই’বার। তাছাড়া এতে থাকা প্রাকৃতিক চিনি শ’রীরের কোনো ক্ষ’তিও করে না।এমনকি উচ্চ র’ক্তচা’পের সমস্যা থাকলেও এটি তা বশে রাখে। জেনে নিন ভেজানো কিসমিস ও এর পানি পান করলে শ’রীর কতটা লাভবান হয়-

১. ভেজানো কিসমিস খেলে শ’রীরে আয়’রনের ঘাটতি দূর হয়। ২. র’ক্তে লাল কণিকার পরিমাণ বাড়ে। ৩. কিসমিস ভেজানো পানি র’ক্ত ​​পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

৪. এমনকি প্রতিদিন কিসমিস ভেজানো পানি পান করলে কো’ষ্ঠকাঠিন্য, অ্যা’সিডিটি থেকে মুক্তি মেলে। ৫. কিসমিস হা’র্ট ভালো রাখে। ৬. নি’য়ন্ত্রণে রাখে কোলে’স্টেরল। ৭. কিসমিসে প্রচুর ভিটামি’ন এবং খনিজ উপাদন রয়েছে।

৮. এতে রয়েছে প্রাকৃতিক অ্যা’ন্টিঅক্সিডে’ন্টসমূহ। যা বিভিন্ন রো’গ থেকে মুক্তি দেয়। ৯. কিসমিসে আরো আছে প’টাসিয়াম, ক্যা’লসিয়াম, ম্যা’গনেসিয়াম এবং ফাই’বার।

১০. উচ্চ র’ক্তচা’প নিয়ন্ত্রণে কিসমিস বেশ উপকারী একটি দাওয়াই। ১১. র’ক্ত স্বল্পতা কমাতে কিসমিসই যথেষ্ট। নিয়মিত খেলে এর মধ্যে থাকা আয়র’ন হি’মোগ্লো’বিনের মাত্রা বাড়ায়।

১২. সুস্থ থাকতে ভালো হজমশ’ক্তি প্রয়োজন। এক্ষেত্রে কিসমিস হজমশ’ক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। ১৩. রো’গ প্রতিরোধ ক্ষ’মতা বাড়াতে ভেজা কিসমিসের বিকল্প নেই। এতে রয়েছে প্রচুর অ্যা’ন্টিঅক্সি’ডেন্ট, যা যে কোনো রো’গের স’ঙ্গে লড়াই করে।

১৪. শ’রীরে থাকা ক্ষ’তিকর পদার্থকে দূর করে কিসমিস। এতে শ’রীর বি’ষমুক্ত হয়। সকালে খালি পেটে ভেজানো কিসমিস খেলে শ’রীর বি’ষমুক্ত হবে। ভেজানো কিসমিসের পাশাপাশি সেই পানিও পান করতে পারেন।

১৫. কিসমিস খাওয়া উপকারী হলেও এটি বেশি পরিমাণে খেলে স্বা’স্থ্যের অবনতি ঘটতে পারে। কিসমিসে ফ্রু’কটোজের পাশাপাশি গ্লু’কোজও রয়েছে। যা ওজন বাড়িয়ে দেয়। অতিরি’ক্ত খেলে শ্বা’সক’ষ্ট, ব’মি, ডা’য়রিয়ার মতো সমস্যা হতে পারে।

About admin

Check Also

গর্ভবতী হতে স্বামীর সাথে কখন মি’লিত হবেন

গর্ভধারণের (Pregnancy) সবচেয়ে উপযুক্ত সময় জেনে নিতে জনপ্রিয় ওভুলেশন ক্যা’ল্কুলেটর ব্যবহার করুন।এর মাধ্যমে আপনার ডিম্বস্ফোটনের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *